Online Santal Resource Page: the Santals identity, clans, living places, culture,rituals, customs, using of herbal medicine, education, traditions ...etc and present status.

The Santal Resource Page: these are all online published sources

Santal Gãota reaḱ onolko ńam lạgit́ SRP khon thoṛ̣a gõṛ̃o ńamoḱa mente ińaḱ pạtiạu ar kạṭić kurumuṭu...

Sunday, November 27, 2016

Attack on Santals: Local MP, UP representatives had direct role

 
 
Local lawmaker, union parishad chairman and members and the local administration were “directly involved” in the November 6 attack on Santals in Gaibandha, said a civil body yesterday, quoting victims and locals.
They placed a seven-point demand including a judicial enquiry into the incident to bring the perpetrators to book, compensation to the victims’ families and withdrawal of the officials involved of the local administration.
Under the banner of Shachetan Nagarik, rights activists, university teachers, politicians and minority community leaders pressed the demands at a press conference at Dhaka Reporters’ Unity (DRU). They there revealed what they had found out during a visit on November 13 to the evicted Santals and Bangalees in Gaibandha.
Meanwhile, a fire broke out at a field of Rangpur Sugar Mills in Gobindaganj upazila of Gaibandha, two weeks after the eviction of Santals from the farm’s land.
The cause of the fire damaging crops on 11 acres of land was unknown until filing of the report at 9:00pm yesterday, said Alamgir Hossain Khan, assistant general manager and superintendent of the farm.
Fire fighters put out the fire, reports our local correspondent.
The mill authority last year planted seeds on 600 acres of its land divided into eight blocks for sugarcane cultivation by rotation, said Managing Director Abdul Awal. The damaged crops amount to 160 tonnes equal to one-day’s crushing input this harvesting season, he added.
At the DRU, civil society members said the state must bear medical expenses of the Santals injured in the eviction drive, withdraw “false cases” filed against Adivasis and re-build Fulmani Murmu Shishu Shiksha O Sangskriti Kendra set ablaze at the time of the eviction.
“Talking to us, Santal people directly held local lawmaker Abul Kalam Azad and Union Parishad Chairman Shakil Akhand Bulbul responsible for the attack,” said Sanjeeb Drong, general secretary of Bangladesh Adivasi Forum, while reading out the keynote paper.
Gaibandha MP Abul Kalam refuted the allegation. He said he was not in the area on the day of the incident.
Santals and Bangalee farmers clashed with sugar mill labourers and police as they tried to drive them out from a disputed land. When Adivasis resisted the eviction move, police opened fire at them, leaving three Santals dead and more than 20 injured, Sanjeeb said.
Two Santals were reported to have been killed but the Adivasi leader named three — Shyamol Hembrom, Mangal Mardi and Ramesh Tudu.
Eminent columnist Syed Abul Maksud said what was done with the Santals was not only violation of human rights and their “right to land” but also violation of the constitution.
Oikya NAP President Pankaj Bhattacharya lambasted Industries Minister Amir Hossain Amu and Industries Secretary Mosharraf Hossain Bhuiyan for their role in the incident.
He said he had spoken with the industries minister regarding a peaceful solution to the matter but the minister spoke in favour of evicting Santals, which was unexpected.
The withdrawal of policemen and officials responsible is not enough; they must be brought to book, Pankaj said.
Dhaka University Prof Abul Barkat said Santals played a pivotal role in every movement against the British colonial rule and the Pakistan rule.
Whenever they were attacked, the successive governments kept their eyes shut, he said.
During the regime of Ayub Khan, Santals were forced to give their land to the sugar mill, said rights activist Khushi Kabir, adding that the Adivasis have the right to get land of their forefathers back since the mill authority violated the agreement signed in 1960s.
According to the agreement, the land should be used only for sugarcane cultivation but it has been used for growing potato, tobacco, pumpkin and rice.
Rangpur mill authority has begun planting sugarcane seeds on the disputed land for the next year’s harvesting season.
Source; The Daily Star
http://bangladeshchronicle.net/2016/11/attack-on-santals-local-mp-up-representatives-had-direct-role/
Share:

Santals in Gaibandha: Worried about the missing

12:00 AM, November 12, 2016 / LAST MODIFIED: 12:27 AM, November 12, 2016

The situation is still tense at Gaibandha's Gobindaganj upazila after Sunday's attack on the Santal community leaving two of them dead.
Talking to The Daily Star yesterday, Philimon Baske, a local leader of the Santals said, “We are really worried about our missing men. Three of us are missing.”
The panicked Santals are not going out of their homes as the situation has not become normal yet, said Rafayel Hasda, another local leader of the indigenous community.
“We are so afraid of further attacks that we can't even go outside to bring food. We also can't look for work,” he said.
On Sunday, the local Santals clashed with a group of Bangali settlers and labourers of Rangpur Sugar Mills. Police fired shots to control the situation leaving two Santal men dead and 15 others injured.
Santal houses were flattened with tractors later that night.
The clash broke out over land dispute.
Meanwhile, ruling Awami League leader Mahbubul Alam Hanif yesterday told The Daily Star that a delegation from the party would visit the Santal community in Gaibandha today.
Prime Minister Sheikh Hasina is sending the team to get firsthand report on the situation there, he said.
Yesterday, the Santals in Gaibandha said they would not take any aids from the local administration unless their problems are solved.
Philimon Baske said they have already asked every member of their community to obey the decision.
He also urged them to share their food in case there is any scarcity.
On Thursday, some non-government organisations distributed rice, lentil, cloths and money among the victims.
Meanwhile, Romesh Soren, 40, who, according to the Santal leaders, was killed during the clash on Sunday, was buried at his Sentajuri village on Thursday night.
However, Subrata Kumar Sarker, officer-in-charge of Gobindaganj Police Station, said Romesh had a natural death.
Sumi Murmu, a Santal woman, who works as a farm worker, said she had been without work since Sunday and there was no food at her home for the family.
On Friday, Philip Gain, director of the Society for Human and Environment Development (Shed), visited the upazila.
 He told The Daily Star that he went to Madarpur, Joypur, Shahebganj and Golapganj villages and saw the locals staying after splitting into small groups for “safety”.
Till yesterday, the evicted Santals were yet to file any case in connection with the looting and arson attack on their properties on Sunday.
Philimon Baske said they wanted to file a case but none of them was willing to go to the police station fearing arrest. Many of the Santal men were staying outside their villages out of the same fear, he added.
During the Pakistan regime in 1952, the government acquired 1,840 acres of land at Shahebganj to set up a sugarcane farm.
The deputy commissioner's office acquired the land for the then Pakistan Industrial Development Corporation, which established Rangpur (Mahimaganj) Sugar Mills between 1954 and 1957. The original land owners were given only Tk 8.07 lakh for the vast land. Later in 1962, the DC office, on behalf of the land owners, signed an agreement with the corporation.
The deal stated that the land was acquired for cultivation of sugarcane by the mill authorities. If the land was used for farming any other crop, the corporation will surrender the land to the government (the DC office).
However, the agreement was violated as the mill authorities leased out most of the land in 2004 for cultivation of crops like rice, wheat, mustard, tobacco and maize.
The Santals started erecting houses on the land about six months ago after they learnt that the mill authorities were planting other crops illegally, said Philimon Baske, who is the president of Sugar Mill Land Recovery Committee.

THE AL TEAM

Earlier yesterday, AL leader Hanif made an announcement at Sheikh Hasina's Dhanmondi political office of sending a delegation from the party to Gaibandha.
The five-person team would try to find out the real culprits behind the incident. “The culprits will be apprehended, regardless of their party affiliation,” he said.

http://www.thedailystar.net/backpage/santals-gaibandha-worried-about-the-missing-1313449
Share:

Santal man being treated with hand cuffed, tied: No case filed over the killing of Santal men

12:00 AM, November 13, 2016 / LAST MODIFIED: 05:12 AM, November 13, 2016
[  Bullet-hit Choron Soren with one of his hands cuffed to his bed at Rangpur Medical College Hospital yesterday. The Santal man, who was shot in the leg during the November 6 attack on his community in Gaibandha, was undergoing treatment under police custody. Photo: Star  ]

Choron Soren was at his home seven days ago when employees of Rangpur Sugar Mills, along with police, attacked Santals in Gaibandha's Gobindaganj to evict ethnic minority families from disputed land.
The attackers beat up the 52-year-old, forced him out of home and took away valuables before torching the house in presence of police.
As he protested the brutality, cops fired shots in his legs, Choron told The Daily Star yesterday.
His fellow Santals later sent him to Rangpur Medical College Hospital (RMCH) on the night of November 6.
Waking up in the following morning, he found one of his hands handcuffed to a rope which was tied to the bed.
Cops arrested him in a case filed with Gobindaganj Police Station in connection with the attack.
Choron has been under police custody since then. He is among the 42 people named by police in the case.
“We were told by police that we are terrorists and were accused in two cases…. This is very unfortunate that the Santals who tried to save their belongings have now become terrorists,” said the victim with tears in his eyes.
His wife Pani Murmu said they were left homeless after the November 6 attack, but nobody inquired about how they were bearing the treatment costs.
Another accused in the case, bullet injured 38-year-old Bimal Kisku, was found sleeping at ward-31 of the hospital as doctors administered painkillers and sedatives to him.
According to doctors, both the patients were shot.
Bimal's wife Chichili Soren said they already spent all their savings for her husband's treatment.
Another arrestee Dijen Tudu was referred to a Dhaka hospital on Thursday with eye injuries.
Philimon Baske, president of Rangpur Sugar Mills Land Recovery Committee, said the treatment of the two was disrupted for handcuffs. Santal men could not visit the duo at the hospital for fear of arrest, he alleged.
Following the attack, the evicted Santals moved to nearby villages and started living in makeshift houses. Gripped by a sense of insecurity, they still cannot go out of the villages.
The Santals were scared that they might come under attack again from Bangalees, said Rafayel Hasda, leader of evicted families.
Ethnic minority people alleged that no case was filed yet in connection with the November 6 killings, looting and arson attack. The Gaibandha district administration was yet to form a probe committee to investigate the incident, said Robindranath Soren, president of Jatiya Adivasi Parishad.
DC, SP VISIT VICTIMS
Md Abdus Samad, deputy commissioner of Gaibandha, and Ashraful Alam, superintendent of district police, visited Gobindaganj yesterday. They talked to victims and assured them of rehabilitation.
The DC said a cluster village would be built soon on 10 acres of land to rehabilitate the landless Santals.
The villagers demanded the DC's office investigate the firing by police on the Santals.
Meanwhile, students of the ethnic minority community were still skipping classes.
“I stopped going to college when I heard that people of our community were being attacked,” Merina Soren, a student of Ghoraghat Degree College in Ghoraghat upazila of Dinajpur, told The Daily Star over the phone.                              
The clash on November 6 ensued at Shahebganj cane farm of Rangpur Sugar Mills over harvesting sugarcane. The clash left two Santals dead and 25 people, including nine cops, injured.
Asked why cops opened fire on the Santals, SP Ashraful said police were forced to fire shots in presence of a magistrate as they came under an arrow attack.          
During the Pakistan regime in 1952, the government had acquired 1,840 acres of land at Shahebganj to set up a sugarcane farm.
The DC's office acquired the land for the then Pakistan Industrial Development Corporation, which subsequently set up Rangpur (Mahimaganj) Sugar Mills between 1954 and 1957.
In 1962, the DC office, on behalf of land owners, signed an agreement with the corporation. The deal stated that the land was acquired for cultivation of sugarcane by the mill authorities. The corporation would return the land to the government if it was used for farming any other crop.
However, the deal was violated by the mill authorities as they leased out most of the land in 2004 for cultivation of rice, wheat, mustard, tobacco and maize.
Philimon Baske said the Santals started building houses on the land about six months ago after they learnt that the mill authorities were planting other crops illegally.

http://www.thedailystar.net/backpage/santal-man-being-treated-hand-cuffed-tied-1313833


Share:

Santals demand return of land, not rehabilitation

12:00 AM, November 23, 2016 / LAST MODIFIED: 12:06 AM, November 23, 2016
A team from Ekatturer Ghatak Dalal Nirmul committee led by its adviser Justice Shamsuddin Chowdhury Manik yesterday visited Santal villages Madarpur and Joypurpara and talked to the families affected due to their eviction from Shahebganj sugarcane farm area in the district.
A report will be prepared on the basis of the affected people's statement for submitting to the Prime Minister's Office and other offices concerned, Justice Shamsuddin said.
At a public hearing in front of Madarpur church on the issue, the committee members recorded statements of five affected Santal people as witnesses.
In 1962 government acquired 1842 acres of lands for cultivation of sugarcane to run Rangpur Sugar Mills but the mill authority later stopped sugarcane cultivation there and illegally leased it to some influential local people, the witnesses said.
The lease holders started cultivation of different crops and dug 12 ponds on the land for fish cultivation.
Backed by the local lawmaker, Shakil Ahmed Bulbul, chairman of Sapmara union parishad (UP), Rezaul Karim Rafique, chairman of Katabari UP, and a few local leaders organised the Santal community on the issue of returning their forefather's landed property, the witnesses said.
The local leaders also helped the Santals to erect sheds on July 1 and realised several lakh taka as donation from the ethnic community for helping to get back their land.
But betraying the Santal community, they later started cooperating with the police and local administration to evict the Santal families, said the witnesses.
On November 6, police launched an eviction drive that led to killing of two Santal men and serious injuries to several others.
The witnesses alleged that their houses were looted and burnt during the eviction.
They demanded return of their forefathers' land as per land record of 1940.
After the public hearing, local Santals brought out a demonstration demanding rehabilitation of evicted Santal families on the farm's land, compensation for arson and looting during the eviction, and justice of killing Santal men.
Visiting the croplands of Shahebganj sugarcane farm, where the Santal community earlier planted aman seedlings, the deputy commissioner of Gaibandha and mill officials yesterday decided to start harvesting the paddy today to distribute it among the Santals, as per a directive from the High Court.

http://www.thedailystar.net/country/santals-demand-return-land-not-rehabilitation-1319017

Share:

Gabindaganj Attack: Santal students seek punishment for local reps; Jatiya Adivasi Parishad's rally Monday

12:00 AM, November 26, 2016 / LAST MODIFIED: 05:08 AM, November 26, 2016
Santal Students' Union, Bangladesh (Sasu) yesterday protested the recent killing of three Santals in Gabindaganj and demanded that the 1,842-acre land, which Santals claim belongs to their ancestors, be returned to the minority community.
Holding a rally in front of the capital's Jatiya Press Club, the protesters put forward an eight-point demand including compensation for Santal victims, formation of a separate land commission for ethnic minorities of northern Bangladesh, and ensuring punishment for those involved in the assault on the Santals.
They said the land was "requisitioned" for cultivating sugarcane from the Santals and Bangalis as per a 1962 deal between the then Pakistan Industrial Development Corporation and East Pakistan, reports our staff correspondent.
"The land was not acquired, but requisitioned, meaning if the land was not used as per terms set in the deal, then the corporation would have to surrender it to the people to whom it belonged," claimed former Sasu president Subodh M Baske, when addressing the rally.
"Grabbers occupied as many as 27 lakh acres of land in the country. But administrations did not bother to reclaim the land," he alleged, lamenting that the Santals continued to be evicted from their forefathers' land.
Accusing local public representatives of being involved in the attacks, Sasu Secretary Sumon Michael Murmu alleged, "The Santal community is being deprived of their land rights and their houses were set on fire and many of the Santal families fell prey to brutal oppressions, which are a flagrant violation of human rights."
Different organisations including United People's Democratic Front and Pahari Chhatra Parishad showed solidarity with the protesters.
Meanwhile, in Rangpur, leaders of Jatiya Adivasi Parishad (Jap) at a press conference, held in the chamber of commerce and industry auditorium, also demanded stern actions against the offenders and a judicial inquiry into the incidents, adds our Dinajpur correspondent.
When reading out a statement, Jap President Rabindranath Soren too alleged that the local representatives were behind the eviction, but the administration was yet to take any action against them. He announced to rally, wearing black masks, across the country on Monday.
The Jap leader put forward another 10-point demand including cancellation of cases against the Santal men filed by police and ensuring land rights and security of the country's minorities.
Jap secretary Sobin Chandra Munda and its Rangpur unit president Advocate Monilal Das were present, among others.

Share:

Going blind doesn't worry him, losing his land does:iInjured, arrested Santal man of Gaibandha panicking over how to support his family

12:00 AM, November 16, 2016 / LAST MODIFIED: 02:07 AM, November 16, 2016
[  Dwijen Tudu in his hospital bed yesterday, while a policeman guarding him talks over the phone. Dwijen has almost gone blind but all he cares about is returning to his land. Photo: Akram Hosen ]

With his left eye completely gone and reddish liquid oozing out all the time from the right, Dwijen can hardly make out the faces of people around him.
But whenever he realises a visitor is here, the landless Santal of Gaibandha asks one question repeatedly.
"Will we be able to go back to our land? Will they [the government] take any measure for us? No matter what happens to me, my children, wife and parents would need a place to live,” he keeps on saying.
Dwijen Tudu, 36, a day labourer, is one of the 15-20 people injured during the November 6 eviction drive at Shahebganj Sugar Mills in Gobindaganj of Gaibandha that also left two Santals dead.
He received numerous pallet injuries in the upper part of his body and one of the pallets went through his left eye.
“Doctors say I am not likely to be able to see with my left eye again while the right eye is also not working right,” he told this correspondent who was visiting the National Institute of Ophthalmology and Hospital in the capital yesterday.
He is one of the three injured Santal men shown arrested in a case filed after the November 6 incident. Police brought him to the hospital, hand cuffed and tied two days later.
Police on Monday took off the handcuffs hours after a High Court directive. Three policemen, however, were seen on guard.
“We starved for the first few days when we came here. I had to share whatever the hospital gave him,” said Dwijen's younger sister Martha Tudu.
She, however, was grateful that people sympathetic to the cause of the Santals have been coming to the hospital with food over the last couple of days.
Dwijen's father Iliam Tudu, a man in his mid 70s, told The Daily Star that he was concerned about Dwijen's well being as he is his only son.
“I can hardly stand on my feet. He was the breadwinner of the family. His children will starve if he goes blind,” he said.
Director of the hospital Golam Mostafa said a five-member medical board formed to treat him found that his left eye was too damaged to treat.

THE LAND IN QUESTION

Families evicted from the predominantly indigenous villages in Gobindaganj upazila of Gaibandha have been asking the local administration to reclaim their ancestral land.
The families first lost their homes and were forced to leave the area in 1962, when the Pakistan government acquired the land for cultivation of sugarcane to be used in Rangpur Sugar Mill, found a probe by additional deputy commissioner (revenue) of the district last year.
The probe was conducted after the families rendered homeless on November 6, brought the issue to the attention of the administration in March last year.
The memorandum, which allowed Pakistan Industrial Development Corporation to acquire the 1,842.3 acres of land, mentioned that the land would be taken back by the government and returned to its previous state, if anything but sugarcane was cultivated there, added the report.
However, paddy, wheat, maize, tobacco, potato and mustard were found to be cultivated in the area by influential people who leased the area from the mill authorities, found the probe by the administration which concluded that the Santals had a claim to the land.


Share:

Attack, Eviction in Gaibandha: Santals sue MP, UNO, 31 others: 600 more anonymous accused in latest case

12:00 AM, November 27, 2016 / LAST MODIFIED: 03:33 AM, November 27, 2016

The evicted Santals. Star file photo
Santals of Gaibandha filed a case against 33, including a local Awami League lawmaker and the UNO of Gobindaganj, yesterday, nearly three weeks after their eviction from a disputed land.
AL lawmaker from Gaibandha-4 Principal Abul Kalam Azad and Gobindaganj Upazila Nirbahi Officer Abdul Hannan have been accused of “ordering” an attack on the indigenous community, said Thomas Hembrom who filed the case on behalf of the Shahebganj-Bagdafarm Bhumi Uddhar Sangram Committee. 
The rest of the accused named, including Shapmara and Katabari unions' chairmen Shakil Akand Bulbul and Rezaul Karim Rafique, and Managing Director of Rangpur Sugar Mills Abdul Awal, are said to have taken part in the attack.

The plaintiff also accused 600 anonymous people, said Nazmul Ahmed, officer-in-charge (investigation) of Gobindaganj Police Station.
“As we received the FIR, it means the case has been registered,” OC Subrata Kumar Sarkar told our Gaibandha correspondent last night. 
On November 6, police along with staff of the mill clashed with Adivasis during a drive to evict them from around 100 acres of the sugarcane farm, which had been acquired from the ancestors of the indigenous community. Santals now want the land in Gobindaganj back saying an agreement signed in 1962 after the land acquirement was violated.
The clash left two Santals dead, six missing and 20 others, including nine policemen, injured.
Santal leaders, however, claim the number of dead is three.
Following the eviction, police filed a case against Adivasis accusing them of intercepting law enforcers when they were discharging their duties, and also of attacking policemen. Four Santals were arrested in the case and released on bail.
The Santal community alleged that police had not received any case from it. 
Earlier, a case was filed on November 17 by Shwapan Murmu, a Santal man, against 500 unidentified people in connection with the November 6 incident, but local Santal leaders say Shwapan does not represent them.
Police have so far arrested 21 people in the previous case.
Hembrom, a member of the Bhumi Uddhar committee, yesterday went to the police station along with his lawyers to file a case. Rights organisations Ain O Salish Kendra (ASK), Nijera Kari, ALRD and BLAST gave them legal support.
About the delay in filing the case, he said police had previously declined taking cases from Santals. Later, they were busy caring for the injured.
Regarding Shwapan's case, Hembrom said Shwapan does not represent the community.
He filed the case on behalf of the Bhumi Uddhar committee that represents the Santal community, he added.
About legal support, Nur Khan Liton, acting executive director of the ASK, said the rights body provided the Santals with the legal support since police had declined to take cases from them.
MP Abul Kalam Azad could not be reached on phone.
Earlier, he told The Daily Star that he was not in the area on the day of the incident, terming the allegations brought against him “baseless and politically motivated.”
Contacted, UNO Abdul Hannan said last night that he was not aware of any case filed against him.
He along with four other executive magistrates discharged duties on instructions of the district magistrate on November 6, he added.
On November 19, a civil body quoting victims and locals said local lawmaker, union parishad chairman and members and the local administration were “directly involved” in the attack on Santals.
Under the banner of Shachetan Nagarik, rights activists, university teachers, politicians and minority community leaders spoke of their findings at a press conference upon visiting the affected area in Gaibandha.

BACKGROUND

During the Pakistan regime in 1952, the government acquired 1,840 acres of land at Shahebganj to set up the sugarcane farm.
The deputy commissioner's (DC) office acquired the land for the then Pakistan Industrial Development Corporation that established Rangpur (Mahimaganj) Sugar Mills between 1954 and 1957.
The original land owners were given only Tk 8.07 lakh for the vast land. Later in 1962, the DC office on behalf of the land owners signed an agreement with the corporation.
The deal stated that the land was acquired for sugarcane cultivation. If the land is used for farming any other crop, the corporation shall surrender it to the government (the DC office).
However, the agreement was violated as the mill authorities leased out most of the land for growing crops like rice, wheat, mustard, tobacco, and maize.
Four months ago, Santal people occupied around 100 acres of land and built makeshift sheds on the plea that the land belonged to their forefathers.

SANTALS RECEIVING PADDY

Meanwhile, harvest of Aman grown by Adivasis on the land was going on for the third day yesterday.
Following a High Court order, people of Rangpur Sugar Mills began harvesting Aman paddy and handed the crops to the evicted Santals.
At first, leaders of the community refused to receive the paddy, demanding removal of the barbed-wire fence erected around the land and withdrawal of cases filed against them.
They started receiving paddy on Thursday night.




Share:

Santal victim files GD against Gobindaganj MP, UNO

Md Tazul Islam, Gaibandh Published at 04:19 PM November 26, 2016
  • After being burnt down to the ashes, all that remained of this Santal home in Madarpur village, Gobindaganj were these holes in the ground made for a stoveMehedi Hasan/Dhaka Tribune

    A Santal man has filed a GD against Gobindaganj lawmaker Prof Abul Kalam Azad and Upazila Nirbahi Officer Md Abdul Hannan, along with hundreds of others, with Gobindaganj police station

    Thomas Hembrom, resident of Harinmari village in Gobindaganj upazila and one of the Santals who were violently evicted from their ancestral land in Shahebganj-Bagda sugarcane farm of Rangpur Sugar Mill Ltd, filed the general diary (GD) around 2pm on Saturday.
    Gobindaganj police station OC (investigation) Al Md Nazmul Ahmed registered the GD, in which 32 individuals were accused of being involved in the attack on Santals.
    Thomas also listed 400-500 unidentified individuals as suspects in the attack.
    He was accompanied by a 10-member delegation comprising representatives of Association of Land Reforms and Development, Ain O Salish Kendra, Bangladesh Legal Aid and Services Trust (BLAST) and Nijerai Pari when he went to the police station to file the GD.
    Speaking to the Dhaka Tribune, Gobindaganj OC Subrata Kumar Sarker said Rangpur Sugar Mill Managing Director Abdul Awal, Sapmara Union Parishad Chairman Shakil Ahmed Bulbul who is also the president of Bangladesh Chhatra League’s Gobindaganj unit, Katabari Union Parishad Chairman Md Rezaul Karim, local Awami League leader Md Hossain Fuku, and a few workers of the sugar mill are also among the accused listed in the GD.
    This is the second case filed by Santals over the incident. The first one was filed on November 16 by Swapan Marmu, from Moalipara village in Gobindaganj, accusing 500-600 people, but none of the accused were named.

    Also Read- Case filed over eviction drive on Santals

    Santal leaders claimed that the first case was not filed by affected Santals.
    “Police have tactfully made a Santal who lives outside of Madarpur and Joypurpara communities [the affected villages] and file the case to save the real culprits,” said Jatiya Adivasi Parishad President Rabindranath Soren in an immediate reaction.
    OC Subrata said 20 people had been arrested in connection with the case filed by Swapan Marmu.
    “Today’s [Saturday’s] complaint has been registered as a general diary and will be filed as a case after we receive the court’s order in this regard. Since a case has already been filed on the incident, we will take further action in accordance with the court’s directive,” he told the Dhaka Tribune.
    Around 2,000 Santal families from 15 villages in the Shahebganj-Bagda farm area were evicted by police and RAB on November 6 and 7.
    Local Bangalis loyal to the local lawmaker also took part in the eviction drive, looting and torching the Santal houses. At least three Santals were killed during clashes and at least 30 people were injured, including nine policemen.

    This screenshot of a video shows a man setting a Santal house on fire right in front of RAB and police personnel on November 6, 2016 Collected from Facebook

    Police filed at least three cases against the local Santals – the last one lodged after the November 6 eviction drive for obstructing the law enforcers from performing duties. Four Santals were arrested in this connection and are currently out on bail.
    The land in question, originally owned by local Santals and some Bangalis, was acquired by the then-East Pakistan government in 1962 for the sugar mill. In 2014, some found that the contract for acquisition had been violated by the mill authority.
    As the contract stated that any violation would transfer the land’s ownership back to the original owners, the Santals along with some Bangalis built 600 homes on 100 acres of the 1,842-acre farmland and started living there in July.

    Also Read- Betrayed and deceived: How Madarpur’s Santals lost everything

    However, the evicted Santals told the Dhaka Tribune that both Sapmara UP Chairman Bulbul and Gobindaganj MP Azad had urged them to start living on the land.

    Santals receive 67 more sacks of paddy

    The sugar mill authorities handed 67 more sacks of paddy over to the Santals on Saturday, sources said.
    The paddy, originally sown and cultivated by the Santals, was harvested by around 100 employees of the sugar mill who volunteered to harvest and package the paddy. A combined harvester machine was also used in the process.
    Around 10 acres of paddy was harvested on Saturday, said the mill’s MD Abdul Awal.
    The authorities started harvesting the paddy on Thursday and has given 149 sacks of paddy – amounting to 298 maunds or around 11,123kg – to Santals in the first three days, he added.
    “We harvested 2.5 acres of paddy on Thursday and nine acres on Friday,” he said.
    According to government estimate, the evicted Santals cultivated paddy in 45.5 acres of the disputed land.
    “Paddy in 30 acres of that land is ready for harvest. The rest will need more time,” Awal said.

    Also Read- Authorities harvest paddy for evicted Santals

    ike the first two days, Gobindaganj UNO Abdul Hannan, district administration magistrates Mezbah Uddin and Rafiul Alam, Gobindaganj OC Subrata Kumar Sarker and representatives from Bangladesh Sugar and Food Industries Corporation were present during the harvesting on Saturday.  

    http://www.dhakatribune.com/bangladesh/nation/2016/11/26/gaibandha-santal-files-gd-against-mp-abul-kalam-azad/

     

     
Share:

God made us Santals: Their sad saga

02:17 PM, November 15, 2016 / LAST MODIFIED: 01:44 PM, November 16, 2016
[  This barbed wire boundary is being built so that the Santals can not come back. The photo is taken on November 12, 2016. Photo Courtesy: Sanjida Jui ] 

After the rampage and arson they faced, how are the Santals passing their days in Gaibandha? What are their mental traumas? How can they forget the flames and marauding crowd plundering their homes? How can they forget the dark night full of horrors?

Here is a pictorial account of their experience as captured by photographer Sanjida Jui.



In 1952, these 1844 acres of land was requisitioned for Rangpur sugar mill to cultivate sugarcane. The deal was if the mill authority doesn’t use this land for sugarcane cultivation anymore, they would return the land to the owners. Photo: Collected
The Santals are too tired to talk or answer questions. They are staying under the open sky since November 6. The photo taken on November 12, 2016. Photo: Sanjida Jui
 
Two Santal women -- Mina and Provati – are seen in the photo taken on November 12, 2016. Photo: Sanjida Jui
 
 
On 6th November evening, the bullets were coming like the days of 1971, according to the Santal people in Gobindaganj upazila of Gaibandha. The photo is taken on November 12, 2016. Photo: Sanjida Jui

A Santal woman is searching for her home, her belongings. Photo: Sanjida Jui
 
 
Joshna Murmu, a Santal woman who was a victim of the incident, said, “It was the time when I was cooking rice for dinner. Suddenly it was fire around. And it burned everything. Police fired the bullets, people of nearby villages looted whatever was left. Now I don’t have anything. My husband went to Bogra. He wants to come back but he can’t. Police are not allowing them to come back here”. Photo: Sanjida Sharmin



The Santal community people are now living under the open sky after the clash took place on November 6, 2016. Photo: Sanjida Sharmin
 
A Santal woman is seen on a land where she had a hut. The photo is taken on November 12, 2016. Photo Courtesy: Sanjida Jui
 
 
This is what they have left for the Santal people. Photo: Sanjida Sharmin
 
Another Santal woman said, “I had two sons and one daughter. I even don’t know their whereabouts”. Photo Courtesy: Sanjida Sharmin
 

 
 
 
 
 
 
 

 

 

 


Share:

সাঁওতালের দুঃখ নিয়ে পানি ফেলছেন বুদ্ধিজীবীরা কেউ কেউ, মেপে মেপে

আমাদের অর্থনীতি :
13.11.2016
ফিরোজ আহমেদ।গোবিন্দগঞ্জে যা দেখে এলাম, তা লেখার অবকাশ কোথায়! গোবিন্দগঞ্জের সাঁওতাল পল্লীতে বন্ধুরা সামান্য কিছু সহায়তা নিয়ে গিয়েছিলেন, সহায়হীন এই মানুষগুলোকে চাল-ডাল কিনে দেওয়ার জন্য। কথা ছিল আজ তা বিতরণ করা হবে। কিন্তু ইউএনও সাহেব নাকি বিশাল বাহিনী নিয়ে নিজে উপস্থিত থেকে সেগুলোর বন্টন বন্ধ করেছেন। কেননা এতেও সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট হবে। সংক্ষেপে কয়েকটি পর্যবেক্ষণ জানাইÑ
এক. আগেই আপনারা জেনেছেন, পুরো এলাকাটা ঘিরে ফেলা হচ্ছে কাটাতারের বেড়ায়। পাকিস্তান আমলে এই জমি অধিগ্রহণের চুক্তিতে বলা ছিল, আখ চাষ না করা হলে জমি অবমুক্ত করে ফিরিয়ে দেওয়া হবে। বর্তমানে মিলের উৎপাদন নেই প্রায়, বছরে কয়েকদিন মাত্র চালু থাকে। প্রায় দুই হাজার একরের বিশাল অঞ্চলটিকে মিলের কর্মকর্তারা ব্যক্তিগত সম্পত্তির মতোই ইজারা দিচ্ছেন অন্যান্যদের কাছে। এরই ভাগ পান স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতারাও।
দুই. ছাই হয়ে যাওয়া ঘর-বাড়িতে কলের লাঙল দিয়ে চাষ দেওয়া হচ্ছে, ভিটেয় হাল চাষের প্রতীকি তাৎপর্য ক্ষমতার দম্ভ প্রদর্শন। অথচ ওই ভূমিকে কৃষিযোগ্য করেছিলেন এই সাঁওতালদেরই পূর্বপুরুষেরা।
তিন. উত্তরবঙ্গে শুরু হতে যাওয়া শীতল আবহাওয়ায় উচ্ছেদ হওয়া নাগরিকেরা আছেন খোলা আকাশের নিচে। তাদের অধিকাংশই একবস্ত্রে বের হয়ে আসতে পেরেছেন। আর কোনো সহায় সম্বল তাদের নেই।
চার. যাতায়াত অত্যন্ত কঠিন সেখানে। এর একদিকে পাহারা দিচ্ছে সরকারি মাস্তানবাহিনী, মারধর করছে, আরেকদিকে পুলিশ। গ্রেফতার করার ভীতি ছড়াচ্ছে একতরফা মামলাতে। ফলে হাটবাজারও বন্ধ। কাজের সন্ধানও বন্ধ।
পাঁচ. সাঁওতালরা এই জনপদে সবচেয়ে পরিশ্রমী জাতি হিসেবে পরিচিত। কিন্তু কি দিনাজপুর, কি নওগাঁ, কি গাইবান্ধা, অঞ্চল নির্বিশেষে তাদের শীর্ণকায় দেহ চোখে না পড়ে পারবে না। কাল দেখলাম, তাদের জন্য ত্রাণ নিয়ে এসেছে একটি ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান, কেজি দুয়েক করে চাল আর ডাল, এক লিটার ভোজ্যতেল, আর একটা কাপড়। এখন পর্যন্ত এইটুকুই জুটেছে।
ছয়. সাঁওতাল সম্প্রদায়ের পড়াশোনার ঝোঁক বেশ আশা জাগানিয়া। প্রায় সব শিশু বিদ্যালয়গামী, কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ছেন, এমন সংখ্যা কম নয়। গাইবান্ধা যাবার আগের দিনই জাহাঙ্গীরনগরে প্রতœতত্ত্ব বিভাগের এক শিক্ষার্থীর সঙ্গে পরিচয় হলো, তিনি দুঃখ করে বলছিলেন, এখানে প্রত্মতত্ত্ব পড়ছি, রুশ বিপ্লব নিয়ে আলোচনা শুনছি আর আমার মা-বাবার ওপর এই অত্যাচার চলছে।
সাত. স্থানীয় সাংবাদিকদের একটা অংশকে কিনে নিয়েছেন আওয়ামী নেতারা। তারা শুরুর দিকে একচেটিয়াভাবে সাঁওতাল সম্প্রদায়কে দখলদার হিসেবে দেখাবার চেষ্টা করেছেন। তবে কয়েকজনকে পাওয়া গেল যারা আন্তরিকভাবে ঘটনা তুলে ধরার চেষ্টা করেছেন।
আট. সাঁওতালের দুঃখ নিয়ে পানি ফেলছেন বুদ্ধিজীবীরা কেউ কেউ, মেপে মেপে। কিন্তু ঘটনার জন্য দায়ীদের চিহ্নিত করা? আওয়ামী লীগ সরকারের ভূমিকা উন্মোচন করা? বিশাল নীরবতা। আর কবে মোসাহেব লজ্জা পেতে শিখবে?
নয়. সারাদেশে আওয়ামী লীগের গ্রাম ও মফস্বল পর্যায়ের নেতাদের ভূমির ক্ষুধার শিকার হয়েছেন আরও অনেকের মতো গোবিন্দগঞ্জের সাঁওতাল সম্প্রদায়। এই হলো এর শ্রেণিগত দিক। তারই রাজনৈতিক আর মতাদর্শ কি বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে আক্রমণের বেপরোয়া ধরনে, লুণ্ঠন আর নির্যাতনে। দুজন মানুষ শুধু খুনই হননি, নিখোঁজ রয়েছেন বেশ কজন। সাঁওতাল সম্প্রদায়ের মানুষ বলেই ঘটনার তুলনায় সামান্যই প্রকাশ পেয়েছে গণমাধ্যমে। এমনকি আক্রান্ত মানুষগুলোকে সামান্য ত্রাণ দিতে গিয়েও হামলার শিকার হওয়াতে বোঝা যায়, কত নির্বিকার চিত্তে এই জাতিগত নিপীড়ন চালিয়ে যাওয়া সম্ভব হচ্ছে বাংলাদেশে।
লেখক: কেন্দ্রীয় সদস্য, গণসংহতি আন্দোলন। সাবেক সভাপতি, বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন
ফেসবুক থেকে
http://amaderorthoneeti.net/new/2016/11/13/41391/#.WDqd5bkRM2w
Share:

ভূমিদস্যুরা চিহ্নিত: দখলে সাঁওতালদের প্ররোচনা জুগিয়েছে- শিল্প সচিব

যুগান্তর রিপোর্ট    |    
প্রকাশ : ১৫ নভেম্বর, ২০১৬ ০০:০০:০০


ভূমিদস্যুদের একটি স্বার্থান্বেষী মহলই রংপুর চিনিকলের সাহেবগঞ্জ খামারের সরকারি জমি দখলে সাঁওতাল সম্প্রদায়কে প্ররোচনা জুগিয়েছে। তারা সাঁওতালদের সামনে রেখে পেছনে ভাড়াটে লোক দিয়ে সেখানে অরাজকতা চালিয়েছে। সরকারের গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা এরই মধ্যে স্বার্থান্বেষী গোষ্ঠীকে চিহ্নিত করতে পেরেছে। তারা এখন নজরদারিতে রয়েছেন। শিগগিরই তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।
সোমবার শিল্প মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য দেন শিল্প মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া। সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান একেএম দেলোয়ার হোসেন ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব আবু হেনা রহমাতুল মুনিম উপস্থিত ছিলেন।
মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া বলেন, এখন ঘটনাকে ভিন্ন খাতে প্রবাহের অপচেষ্টা করছে একটি মহল। প্রকৃতপক্ষে মিল খামারের সরকারি জমি উদ্ধারের ক্ষেত্রে আদিবাসীদের কোনো ধরনের নির্যাতন করা হয়নি। এমনকি যেসব সাঁওতালকে উচ্ছেদ করা হয়েছে দাবি করা হচ্ছে, প্রকৃতপক্ষে তারা কখনও এই জমির মালিক ছিলেন না। স্থানীয় সবার সহযোগিতায় আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে সুশৃংখল অভিযান চালিয়ে দখলকৃত জমি পুনরুদ্ধার করেছে। বিষয়টি স্পর্শকাতর হওয়ায় সরকার এক্ষেত্রে কোনো ধরনের তাড়াহুড়ো করেনি। বরং ঘটনা মোকাবেলায় আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ ধৈর্য ও পেশাদারিত্বের পরিচয় দেয়া হয়েছে। এ ঘটনার সময় যে তিনজন নিহত হয়েছে, তাদের মৃত্যুর সঙ্গে উচ্ছেদ কার্যক্রমের কোনো সম্পৃক্ততা নেই। তাদের স্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে নাকি গুলিতে তারা নিহত হয়েছেন তা মেডিকেল রিপোর্ট আসার পর জানা যাবে। নিহতদের পরিবারকে আর্থিক সহযোগিতা দেয়া হচ্ছে।
এছাড়াও ক্ষুদ্র ও নৃ-গোষ্ঠীভুক্ত সাঁওতালদের মধ্যে যাদের বাড়িঘর নেই তাদের একটি সরকারি খাস জমি দেয়া হবে। কিন্তু কোনোভাবেই সুগার মিলের নিয়ন্ত্রণাধীন সাহেবগঞ্জ কৃষি খামারের এক হাজার ৮৪২ একর জমি কাউকে দখল করতে দেয়া হবে না।
শিল্প সচিব বলেন, ভূমিদস্যুরা সাঁওতালদের সামনে রেখে বাইরে থেকে কিছু লোক ভাড়া করে এনে চলতি বছরের ১ জুলাই থেকে খামারের একটি অংশে অস্থায়ী স্থাপনা নির্মাণ শুরু করে। তাদের প্রত্যেকের সে এলাকায় নিজস্ব বাড়িঘর আছে।
মোশাররফ হোসেন বলেন, ১ সেপ্টেম্বর আখ রোপণ মৌসুম শুরু হয়। মিলের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মচারীরা খামারের সরকারি জমিতে আখ চাষ করতে গেলে অবৈধ দখলদাররা তীর, ধনুক ও দেশীয় অস্ত্র দিয়ে শ্রমিক-কর্মচারীদের আহত করে। ২০ সেপ্টেম্বর খামারের উন্নয়নমূলক কাজ করতে গেলে মিলের শ্রমিক কর্মচারীরা পুনরায় অবৈধ দখলদার দ্বারা লাঞ্ছিত হন এবং সাঁওতাল ও স্থানীয় বাঙালি জনগোষ্ঠী একত্রিত হয়ে মিলের ২ লাখ ৭০ হাজার টাকার মালামাল ক্ষতি করে।
গোবিন্দগঞ্জ থানায় বিষয়টি জানানো হলে ৬ অক্টোবর ৭২ ঘণ্টার মধ্যে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ ও উপজাতিসহ অবৈধ দখলদারদের খামার এলাকা ছাড়ার অনুরোধ জানানো হয়েছে। তিনি বলেন, থানা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যাপক প্রচারের পরও ওই দখলদাররা বিষয়টিতে নজর দেননি। উল্টো পুলিশ প্রশাসন বিষয়টি সমাধান করতে গেলে অবৈধ দখলদারদের আক্রমণে ১০/১২ জন পুলিশ সদস্য আহত হন।

http://www.jugantor.com/last-page/2016/11/15/76793/%E0%A6%A6%E0%A6%96%E0%A6%B2%E0%A7%87-%E0%A6%B8%E0%A6%BE%E0%A6%81%E0%A6%93%E0%A6%A4%E0%A6%BE%E0%A6%B2%E0%A6%A6%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%B0%E0%A7%8B%E0%A6%9A%E0%A6%A8%E0%A6%BE-%E0%A6%9C%E0%A7%81%E0%A6%97%E0%A6%BF%E0%A7%9F%E0%A7%87%E0%A6%9B%E0%A7%87
Share:

সরকারের ত্রাণ ফিরিয়ে দিলেন সাঁওতালরা উচ্ছেদকৃত: জমিতেই পুনর্বাসন ও জড়িতদের শাস্তির দাবি

গাইবান্ধা প্রতিনিধি    |    
প্রকাশ : ১৫ নভেম্বর, ২০১৬ ০০:০০:০০ | অাপডেট: ১৫ নভেম্বর, ২০১৬ ০১:৪৩:৫৫ 
[  গোবিন্দগঞ্জের সাহেবগঞ্জ ইক্ষু খামারে সংঘর্ষে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য সোমবার উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে মাদারপুর গ্রামে ত্রাণ নিয়ে যাওয়া হয়। তবে উচ্ছেদের প্রতিবাদে তা প্রত্যাখ্যান করেন সাঁওতালরা -যুগান্তর ] 

জেলার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় প্রশাসনের ত্রাণ ফিরিয়ে দিয়েছেন সাঁওতালরা। সহিংস হামলার শিকার সাঁওতাল সম্প্রদায়ের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করতে সোমবার সকালে মাদারপুর মিশন গির্জা এলাকায় হাজির হন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আবদুল হান্নান। ত্রাণ বিতরণ করা হবে এমন খবর পেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত ও দরিদ্র সাঁওতাল পরিবারগুলো এগিয়ে যায়। কিন্তু এটি প্রশাসনের ত্রাণ হওয়ায় সেগুলো গ্রহণ করতে অস্বীকৃতি জানিয়ে তারা সবাই বাড়িতে ফিরে যান। এ ব্যাপারে ক্ষতিগ্রস্ত সাঁওতালদের বক্তব্য, যারা আমাদের গুলি করে হত্যা করেছে, বাড়িতে আগুন দিয়েছে, বাপ-দাদার জমি থেকে উচ্ছেদ করেছে, মামলা দিয়েছে তাদের দেয়া ত্রাণসামগ্রী তারা গ্রহণ করবেন না। উচ্ছেদকৃত জমিতেই তারা পুনর্বাসন ও দায়ী ব্যক্তিদের শাস্তির দাবি জানান।

ইউএনও মো. আবদুল হান্নান জানান, জেলা প্রশাসনের বরাদ্দকৃত ত্রাণসামগ্রী ক্ষতিগ্রস্ত ১৫০ জন পরিবারের মধ্যে বিতরণের জন্য নিয়ে যাওয়া হয়। এতে প্রত্যেক পরিবারের জন্য ২০ কেজি চাল, ১ লিটার সয়াবিন, ১ কেজি আলু, আধা কেজি মসুর ডাল, আধা কেজি লবণ এবং দুটি করে কম্বল বরাদ্দ দেয়া হয়েছিল। কিন্তু তারা গ্রহণ না করায় দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করে ত্রাণসামগ্রীগুলো ফিরিয়ে আনতে হয়।

সাহেবগঞ্জ ইক্ষু খামার ভূমি উদ্ধার কমিটির সহসভাপতি ফিলিমন বাসকে বলেন, কাঁটা তার দিয়ে আমাদের বাপ-দাদার সম্পত্তি থেকে যখন বঞ্চিত করার ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে, নিহতদের ক্ষতিপূরণের যখন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি, আগুন এবং লুটপাটের ফলে যে ব্যাপক ক্ষতি হয় তা পূরণের কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। সে ক্ষেত্রে সামান্য খাদ্য দিয়ে আমাদের মুখ বন্ধ করার চেষ্টা করা হচ্ছে। ক্ষতিগ্রস্তরা তাই প্রশাসনের ওই ত্রাণসামগ্রী প্রত্যাখ্যান করেছেন।

মানবাধিকার কমিশনের পরিচালক (প্রশাসন) ইসরাত হোসেন খান সোমবার ক্ষতিগ্রস্ত সাঁওতাল পল্লী জয়পুর ও মাদারপুর পরিদর্শন করেন। তিনি তাদের খোঁজখবর নেন। তাদের ওপর নির্যাতন এবং সমস্যার বিষয়গুলো বিভিন্ন মহলে তুলে ধরার আশ্বাস দেন।

সোমবার দুপুরে রংপুর চিনিকল শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়ন গোবিন্দগঞ্জ প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সাঁওতালদের ওপর হামলা, বাড়িঘরে আগুন, লুটপাট, গুলি করে হত্যার ঘটনাকে কেন্দ্র করে উদ্ভুত পরিস্থিতি নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আবদুল মতিন প্রধান লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন। এ সময় তিনি বলেন, ৬ নভেম্বর সাহেবগঞ্জ ইক্ষু খামারে কাঁটা মোড়ে রংপুর চিনিকলের পক্ষ থেকে আখ বীজ কাটতে গেলে সাঁওতালদের সঙ্গে শ্রমিক-কর্মচারীদের সংঘর্ষ হয়। এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ এগিয়ে গেলে ১০ পুলিশ সদস্য তীরবিদ্ধ হওয়াসহ ৩০ জন আহত হয়। এরপর সন্ধ্যায় যৌথ বাহিনী অভিযান শেষে ফিরে আসার পর স্থানীয় উচ্ছৃঙ্খল জনতা সাঁওতালদের দখলকৃত জায়গায় গড়ে তোলা ঘরগুলোতে আগুন দেয়।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন রংপুর চিনিকল ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আবদুল আউয়াল, চিনিকল শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান দুলাল প্রমুখ।

সৌহার্দ সমাবেশ : সোমবার বিকালে সাহেবগঞ্জ ইক্ষু খামার সংলগ্ন কাঁটা মোড়ে সাপমারা ও কাটাবাড়ি ইউনিয়নের যৌথ উদ্যোগে স্থানীয় সাঁওতাল-বাঙালি মুসলিমদের মধ্যে সৌহার্দপূর্ণ সম্পর্ক শীর্ষক এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। কাটাবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান রেজাউল করিম রফিকের সভাপতিত্বে বক্তৃতা করেন গোবিন্দগঞ্জ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদ, জেলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণাবিষয়ক সম্পাদক মোহাম্মদ হোসেন ফকু, মহিমাগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল লতিফ প্রধান, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া ইসলাম জুয়েল, দরবস্ত ইউপি চেয়ারম্যান আ র ম শরিফুল ইসলাম জজ, হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি শৈলেন্দ্র মোহন রায়, উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সেক্রেটারি তনয় কুমার দেব, ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী নেতা গৌড় মাল পাহাড়ী, রশেন কিসকু, চরণ মুরমু, সাপমারা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি শামীম রেজা মন্টু, যুবলীগ নেতা মিনহাজুল ইসলাম প্রমুখ।

সমাবেশের ব্যাপারে সাহেবগঞ্জ ইক্ষু খামার ভূমি উদ্ধার কমিটির সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান আলী প্রধান মোবাইল ফোনে বলেন, ভূমি উদ্ধার আন্দোলনে এখনও যিনি সংগঠনের সভাপতি হিসেবে চিহ্নিত, তিনি সাপমারা ইউপি চেয়ারম্যান শাকিল আকন্দ বুলবুল। তিনিই আন্দোলনের বিরোধিতা করে সাঁওতালদের উচ্ছেদ ও লুটপাটে ভূমিকা রেখেছেন। তিনি আরও বলেন, সোমবার কাঁটা মোড়ে যারা সম্প্র্রীতি সমাবেশের আয়োজন করেন তারাই গোবিন্দগঞ্জের বিভিন্ন সাঁওতাল পল্লী থেকে দরিদ্র নৃগোষ্ঠীর লোকদের ভাড়া করে এবং জীবননাশের হুমকি দিয়ে সমাবেশে আসতে বাধ্য করেন।

গুলিবর্ষণের নেপথ্যে : গোবিন্দগঞ্জে চিনিকলকর্মী ও পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের সময় সাঁওতালদের ওপর গুলির নির্দেশ কারা দিয়েছিলেন তা জানতে প্রশাসনের কর্মকর্তাদের কাছে বারবার প্রশ্ন করেও উত্তর পাওয়া যায়নি। তবে সোমবার সকালে গোবিন্দগঞ্জ থানার ওসি সুব্রত কুমার সরকার এ ব্যাপারে জানান, সেদিন ৫ ম্যাজিস্ট্রেটকে আইনশৃংখলা রক্ষার দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল। তাদের নির্দেশে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে গুলি করা হয়। ওই পাঁচজন হলেনÑ গোবিন্দগঞ্জের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবদুল হান্নান, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আহমেদ আলী, পলাশবাড়ি উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) তৌহিদুল ইসলাম, জেলা কালেক্টরেটের ম্যাজিস্ট্রেট রাফিউল ইসলাম ও মেজবাহ উদ্দিন। গোবিন্দগঞ্জের ইউএনও আবদুল হান্নান বলেন, উদ্ভুত পরিস্থিতির কারণে গুলি ছোড়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছিল।

আহতদের দেখতে হাসপাতালে আ’লীগ নেতারা : রংপুর ব্যুরো জানায়, গোবিন্দগঞ্জে আহত সাঁওতালদের রোববার রাতে রংপুর মেডিকেল কলেজ (রমেক) হাসপাতালে দেখতে আসেন আওয়ামী লীগ নেতারা। নেতাদের মধ্যে ছিলেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সংসদ সদস্য খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, অর্থ ও পরিকল্পনাবিষয়ক সম্পাদক সংসদ সদস্য টিপু মুনশি, রংপুর বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক এবিএম মোজাম্মেল হক এবং জেলা ও মহানগর নেতারা। হাসপাপতালে চিকিৎসাধীন আহত সাঁওতালরা আওয়ামী লীগ নেতাদের কাছে ওইদিনের সহিংস ঘটনার জন্য স্থানীয় সংসদ সদস্যকে দায়ী করেন।

পুলিশের গুলিতে গুরুতর আহত দ্বিজেন টুডোকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে তাকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে চক্ষু বিভাগের চিকিৎসক শম্পা জানিয়েছেন। তিনি জানান, দ্বিজেন টুডোর চোখের উপরের অংশে গুলি লেগেছে।
 
http://www.jugantor.com/last-page/2016/11/15/76790/%E0%A6%B8%E0%A6%B0%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%A4%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%A3-%E0%A6%AB%E0%A6%BF%E0%A6%B0%E0%A6%BF%E0%A7%9F%E0%A7%87-%E0%A6%A6%E0%A6%BF%E0%A6%B2%E0%A7%87%E0%A6%A8-%E0%A6%B8%E0%A6%BE%E0%A6%81%E0%A6%93%E0%A6%A4%E0%A6%BE%E0%A6%B2%E0%A6%B0%E0%A6%BE 
Share:

নাসিরনগর ও গোবিন্দগঞ্জে সহিংসতা: সাম্প্রদায়িক সংঘাতে চিন্তিত আওয়ামী লীগ

আনোয়ার হোসেন | আপডেট: | প্রিন্ট সংস্করণ 
সাঁওতালদের ওপর হামলায় আহত বিমল কিছকু রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎ​সাধীন। গতকাল বেলা ৩.৫৩ মিনিটে তাঁকে হাতকড়া পরা অবস্থায় দেখা যায়। রাতে হাতকড়া খুলে দেওয়া হয় l প্রথম আলো  ] 

দলের মধ্যে ব্যক্তিস্বার্থের দ্বন্দ্ব নিয়ে চিন্তিত আওয়ামী লীগ। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে হিন্দু সম্প্রদায় ও গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে সাঁওতালদের ওপর সহিংসতার পেছনে দলের নেতাদের ইন্ধনের অভিযোগ এবং স্বার্থের দ্বন্দ্বের বিষয়টিতে নতুন মাত্রা যোগ করেছে। এ দুটি ঘটনায় একধরনের চাপে পড়েছে দল ও সরকার। ঘটনা দুটি অসাম্প্রদায়িক আদর্শের মূলে আঘাত বলে মনে করছে আওয়ামী লীগ।
নাসিরনগরে সাম্প্রদায়িক হামলা ও গাইবান্ধায় সাঁওতাল সম্প্রদায়ের তিনজনের প্রাণহানির বিষয়ে সরকারের দুজন মন্ত্রী, আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর দুজন সদস্যসহ কেন্দ্রীয় কমিটির ছয়জনের সঙ্গে এই প্রতিবেদকের কথা হয়। তাঁরা বলেন, সরকার ও দলের ভাবনা হচ্ছে এসব ঘটনার পেছনে দলের নেতাদের সংশ্লিষ্টতার যে অভিযোগ এসেছে, তা ব্যক্তিস্বার্থের কারণে। অতীতেও টেন্ডারবাজিসহ নানা ঘটনায় এমনটা দেখা গেছে। ব্যবস্থাও নেওয়া হয়েছে। তবে সাম্প্রদায়িক সংঘাতের মতো গুরুতর বিষয়ে দলের নেতাদের ইন্ধনের খবর তাঁদের চিন্তায় ফেলেছে। এসব অপরাধীর দায় দল নেবে না। ইতিমধ্যে সরকার আইনি ব্যবস্থা নিয়েছে। সাংগঠনিক ব্যবস্থাও নেওয়া হবে।
আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল একাধিক সূত্র জানায়, সরকার ও দলের ভেতরেই আলোচনা আছে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী ছায়েদুল হকের সঙ্গে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাংসদ র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরীর দ্বন্দ্বের কারণে নাসিরনগরের ঘটনাটি বড় হয়েছে। ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে দলীয় প্রার্থীর মনোনয়ন দেওয়া নিয়ে মূলত মন্ত্রীর সঙ্গে এই সাংসদের দ্বন্দ্বের সূত্রপাত।
সরকারি সূত্র বলছে, নাসিরনগরে হিন্দুদের ওপর ধারাবাহিক হামলার পেছনে আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দল কাজ করেছে—এটা পুলিশের তদন্তেও কিছুটা এসেছে। এই প্রতিবেদন এখনো প্রকাশ না পেলেও ইতিমধ্যে একাধিক গণমাধ্যমে এ-সংক্রান্ত খবর বেরিয়েছে।
সরকারের শরিক ১৪ দল থেকেও এসব ঘটনায় আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতা-কর্মীদের জড়িত থাকার প্রসঙ্গটি বিভিন্নভাবে তোলা হয়েছে। সাংগঠনিক চ্যানেলে খোঁজ নিয়ে আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল একাধিক নেতা নিশ্চিত হয়েছেন যে নাসিরনগরের ঘটনা বড় হয়েছে দলের কোন্দলের কারণে।
এরই পরিপ্রেক্ষিতে দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৯ নভেম্বর গণভবনে দলের কয়েকজন নেতার কাছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরীর বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। মোকতাদির চৌধুরীর বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়ার কথাও বলেন বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে।
নাসিরনগরের ঘটনায় ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। যুক্তরাষ্ট্রসহ দেশে-বিদেশে বিক্ষোভ হয়েছে। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী ছায়েদুল হকের পদত্যাগ চেয়ে ঢাকায় বিক্ষোভ হয়েছে। এটা সরকার ও দলকে অস্বস্তিতে ফেলেছে।
জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম প্রথম আলোকে বলেন, আওয়ামী লীগ ও সরকার সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির জন্য সবকিছুই করছে এবং ভবিষ্যতেও করবে। তাঁর দাবি, সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করার জন্য একটা চক্র পেছনে কলকাঠি নাড়ছে। তিনি বলেন, এ ক্ষেত্রে দলের কেউ যদি ব্যক্তিস্বার্থ উদ্ধারের লক্ষ্যে জড়িয়ে পড়ে, তাকে ছাড় দেওয়া হবে না।
নাসিরনগরের স্থানীয় সূত্রগুলো বলছে, মন্ত্রী ছায়েদুল হক গত এপ্রিলে অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে হরিপুরে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন দিয়েছিলেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ফারুক মিয়াকে। কিন্তু তাঁর বাবা যুদ্ধাপরাধী, এমন অভিযোগ তুলে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোকতাদির চৌধুরী মনোনয়ন দেন ব্যবসায়ী ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য দেওয়ান আতিকুর রহমানকে। ওই অবস্থায় দলীয় মনোনয়নবঞ্চিত হয়ে ফারুক মিয়া সমর্থন দেন স্বতন্ত্র প্রার্থী রাশেদ চৌধুরীকে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আতিকুর রহমান জয়ী হন। এরপর থেকেই ফারুক মন্ত্রীর লোক ও আতিকুর সাংসদ মোকতাদিরের ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিতি পান। ছায়েদুল হক জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য। ইউপি নির্বাচন নিয়ে দ্বন্দ্বের কারণে তাঁকে অব্যাহতি দেওয়ার জন্য কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের কাছে সুপারিশ পাঠান জেলা সভাপতি মোকতাদির চৌধুরী। সর্বশেষ হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলার ঘটনায় আতিকুরের বিরুদ্ধে ইন্ধনের অভিযোগ উঠেছে। এর বাইরে স্থানীয় একটি বিলের নিয়ন্ত্রণ নিয়েও দুই পক্ষের মধ্যে দ্বন্দ্ব আছে।
অবশ্য আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল নেতাদের কেউ কেউ মন্ত্রী ছায়েদুল হকেরও সমালোচনা করছেন। ওই নেতারা বলেন, নিজের নির্বাচনী এলাকায় হিন্দুদের ওপর হামলার পর মন্ত্রী তাৎক্ষণিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের পাশে দাঁড়াননি। চার দিন পর তিনি এলাকায় গেছেন। এ ছাড়া নিজ নির্বাচনী এলাকায় বিপুলসংখ্যক হিন্দু সম্প্রদায়ের বসবাস সত্ত্বেও তাদের বিষয়ে মন্ত্রীর উদাসীনতা রয়েছে বলেও মনে করেন অনেক নেতা।
দলীয় সূত্র জানায়, নাসিরনগরের ঘটনার পর প্রধানমন্ত্রী সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের নেতাদের একাধিকবার গণভবনে ডেকে বিষয়টি বোঝার চেষ্টা করেছেন। এরপর দলের বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের নেতাদের সমন্বয়ে আলাদা দল পাঠিয়েছেন। সর্বশেষ দুটি গোয়েন্দা সংস্থাকে অনুসন্ধান করে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।
আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় দুজন নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রথম আলোকে বলেন, দল সাত বছর ধরে ক্ষমতায়। তৃণমূল থেকে কেন্দ্র পর্যন্ত নানা স্বার্থের দ্বন্দ্ব সৃষ্টি হয়েছে। দলীয়ভাবে পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন করার কারণে বিভক্তি চরমে পৌঁছেছে। জমি দখল থেকে শুরু করে সরকারি উন্নয়নকাজের টেন্ডার দখল—সবকিছুতেই পক্ষ-বিপক্ষ এখন আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরাই। এসব নিয়ে কখনো নিজেদের দুই পক্ষের মধ্যে মারামারি হয়। কখনো চলে ‘প্রক্সি ওয়ার’ (ছায়াযুদ্ধ)। এক পক্ষ বিপদে পড়লে আরেক পক্ষ ঘায়েল করার কাজে নেমে পড়ে।
গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে সাঁওতাল অধ্যুষিত দুটি গ্রামে সহিংসতার পর আওয়ামী লীগের দুজন সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হক, খালিদ মাহমুদ চৌধুরীসহ কেন্দ্রীয় নেতাদের একটি দল রোববার ওই এলাকা পরিদর্শন করে। দলটির সদস্যরা গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার সাপমারা ইউনিয়নের মাদারপুর গির্জার সামনে এক সমাবেশে অংশ নেন। সেখানে সাঁওতালরা প্রকাশ্যে অভিযোগ করেছে, তাদের ওপর সহিংসতায় সরকারদলীয় সাংসদ আবুল কালাম আজাদ ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান শাকিল আহমেদের ইন্ধন রয়েছে। এ সময় জাতীয় আদিবাসী পরিষদ, জাতীয় আদিবাসী ফোরাম ও বিশিষ্ট নাগরিকদের দুটি প্রতিনিধিদলও উপস্থিত ছিল।
কেন্দ্রীয় কমিটির যে দলটি সাঁওতাল এলাকা পরিদর্শনে যায়, ওই দলের দুজন নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রথম আলোকে বলেন, স্থানীয় আওয়ামী লীগের একাংশ গাইবান্ধার ঘটনায় সুযোগ নেওয়ার চেষ্টায় ছিল। তবে সাংসদের বিরুদ্ধে ইন্ধনের অভিযোগের ভিত্তি তাঁরা পাননি। এই দুই নেতার দাবি, সাঁওতালরা মনে করছে, সাংসদের পরামর্শ ছাড়া পুলিশ গুলি করত না। এ জন্যই তারা সাংসদের বিষয়ে অভিযোগ করছে। এ ছাড়া এলাকাটি জামায়াত অধ্যুষিত। তাদের ইন্ধনও থাকতে পারে।
আবুল কালাম আজাদ গত নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন না পেয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে জয়ী হন। পরে তিনি দলের উপজেলা শাখার সভাপতি হন। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান শাকিল আহমেদও বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে জয়ী হন। তিনি উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি। ফলে ওই এলাকায় দলে বেশ বিভাজন রয়েছে।
সাঁওতালদের অভিযোগ, চিনিকলের সঙ্গে জমি নিয়ে বিরোধ মেটাতে সাংসদ আবুল কালাম ও ইউপি চেয়ারম্যান শাকিলের সহযোগিতায় তাঁরা চার বছর আগে আন্দোলন শুরু করেন। কিন্তু সাংসদ ও চেয়ারম্যান পরে মুখ ফিরিয়ে নিয়ে সহিংস ঘটনায় ইন্ধন জুগিয়েছেন। এ কারণে সাঁওতালদের বাড়িঘর পুড়িয়ে, তাদের হত্যা করে উল্টো সাঁওতালদের বিরুদ্ধেই মামলা হয়েছে বলে তাঁরা মনে করেন।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর একজন সদস্য প্রথম আলোকে বলেন, সাম্প্রদায়িক সহিংসতার পেছনে বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই বৈষয়িক লাভের বিষয়টি কাজ করে। এর পেছনে ইন্ধনও থাকে। এখন ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও গাইবান্ধার ঘটনা আওয়ামী লীগের জন্য অস্বস্তির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

 
Share:

প্রচ্ছদ বাংলাদেশ বিবিধ সাঁওতালরা ত্রাণ ফিরিয়ে দিলেন

গাইবান্ধা প্রতিনিধি | আপডেট: | প্রিন্ট সংস্করণ
[ সাঁওতালদের ওপর হামলায় আহত বিমল কিছকু রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎ​সাধীন। গতকাল বেলা ৩.৫৩ মিনিটে তাঁকে হাতকড়া পরা অবস্থায় দেখা যায়। রাতে হাতকড়া খুলে দেওয়া হয় l প্রথম আলো

গোবিন্দগঞ্জের মাদারপুর ও জয়পুর গ্রামে এখনো আতঙ্ক  সংঘর্ষ–হামলার নয় দিনেও তদন্ত কমিটি হয়নি

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে নির্যাতনের শিকার সাঁওতালরা সরকারি ত্রাণ ফিরিয়ে দিয়েছেন। ‘বাপ-দাদা’র জমি ফিরে না পাওয়া পর্যন্ত তাঁরা ত্রাণ নেবেন না বলে জানিয়ে দিয়েছেন। অন্যদিকে শিল্পসচিব মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া ঢাকায় সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, কাউকে চিনিকলের জায়গা দখল করে থাকতে দেওয়া হবে না। তবে সরকার সাঁওতালদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করবে।
গতকাল সোমবার সকালে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আবদুল হান্নান গাইবান্ধার এই উপজেলার সাপমারা ইউনিয়নের মাদারপুর ও জয়পুর গ্রামে যান। দেড় শ পরিবারের প্রত্যেককে ২০ কেজি চাল, এক লিটার তেল, এক কেজি ডাল, এক কেজি আলু, এক কেজি লবণ ও দুটি করে কম্বল বিতরণের কথা ছিল। ইউএনও মুঠোফোনে প্রথম আলোকে বলেন, তিনি ঘরে ঘরে গিয়ে ত্রাণ নেওয়ার অনুরোধ জানালেও কেউ ত্রাণ নিতে রাজি হননি। সকাল থেকে মাদারপুর গির্জার সামনে ত্রাণ নিয়ে অপেক্ষা করে সন্ধ্যায় তিনি উপজেলা শহরে ফিরে আসেন।
সাহেবগঞ্জ-বাগদাফার্ম ইক্ষু খামার ভূমি উদ্ধার সংহতি কমিটির সহসভাপতি ফিলিমিন বাস্কে মুঠোফোনে বলেন, দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত তাঁরা প্রশাসনের কোনো ত্রাণ নেবেন না। তাঁরা বাপ-দাদার জমি ফেরত চান। প্রশাসনের ভূমিকা নিয়েও তিনি প্রশ্ন তোলেন। ফিলিমিন বলেন, সাঁওতালদের নিহত হওয়া, বসতবাড়িতে অগ্নিসংযোগ, লুটপাটের ঘটনায় কোনো মামলা বা তদন্ত কমিটি পর্যন্ত হয়নি। উল্টো মিথ্যা মামলা দিয়ে তাঁদের হয়রানি করা হচ্ছে।
৬ নভেম্বর গোবিন্দগঞ্জের রংপুর চিনিকলের জমিতে আখ কাটাকে কেন্দ্র করে পুলিশ ও চিনিকল শ্রমিক-কর্মচারীদের সঙ্গে সাঁওতালদের সংঘর্ষে পুলিশসহ উভয় পক্ষের অন্তত ২০ জন আহত হন। তাঁদের মধ্যে তিরবিদ্ধ হয়েছেন নয়জন এবং গুলিবিদ্ধ হন চারজন। এ সংঘর্ষের ঘটনায় তিনজন সাঁওতাল নিহত হন। এ ঘটনায় শুধু পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় গোবিন্দগঞ্জ থানায় ওই রাতে ৪২ জনের নাম উল্লেখ করে এবং ৩০০ থেকে ৪০০ জনকে অজ্ঞাত আসামি দেখিয়ে মামলা করা হয়। গতকাল বিকেল পর্যন্ত চারজন সাঁওতালকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়।
ঘটনার নয় দিনেও এখানকার সাঁওতাল-অধ্যুষিত এলাকাগুলোতে আতঙ্ক বিরাজ করছে। মাদারপুর গ্রামের জোবা টুডু (৫৫) বলেন, তাঁর এক ছেলে উচ্চমাধ্যমিক শ্রেণিতে পড়ে। ভয়ে কলেজে যেতে পারছে না। মেরি টুডুর নতুন বাড়ি আগুনে পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। পুরোনো বাড়িতে লুটপাট হয়েছে। তাঁদের ঘরে খাবার নেই। প্রশাসন নিরাপত্তার আশ্বাস দিলেও সাঁওতালরা স্বস্তি পাচ্ছেন না।
গত রোববার গাইবান্ধার ওই অঞ্চল থেকে ঘুরে এসেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক আবুল বারকাত। গতকাল রাতে তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমি তাদের জিজ্ঞেস করেছি আপনারা কী চান? তারা বলেছে জমি চাই। জিজ্ঞেস করেছি জীবন বড়, না জমি বড়? তারা বলেছে, বাপ-দাদার জমি তাঁরা ফেরত চান।’
ঢাকায় নিজস্ব প্রতিবেদক জানান, শিল্পসচিব মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া গতকাল মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে আয়োজিত সংবাদ ব্রিফিংয়ে বলেছেন, ৬ নভেম্বর চিনিকলের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা গিয়েছিলেন পাশের একখণ্ড জমিতে আখের বীজ কাটতে, উচ্ছেদ অভিযানে নয়। কিন্তু অবৈধ দখলদারেরা তাতে বাধা দেন। তির-ধনুক নিয়ে তাঁরা আক্রমণ করেন। কিছু স্বার্থান্বেষী ভূমিদস্যু এ ঘটনায় ইন্ধন দেয়। নিরীহ ও সহজ-সরল প্রকৃতির সাঁওতালরা পরিস্থিতির শিকার। তাঁদের প্রতি সরকার অত্যন্ত সহানুভূতিশীল। সেখানে হতাহত ব্যক্তিদের উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে। প্রয়োজনে ভূমিহীন সাঁওতালদের পুনর্বাসনেরও ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কিন্তু সরকারি মালিকানাধীন চিনিকলের জায়গা দখল করে কাউকে থাকতে দেওয়া হবে না। পুলিশের গুলিতে সাঁওতালরা নিহত হয়েছেন কি না, সে নিয়েও প্রশ্ন তোলেন তিনি। ময়নাতদন্তের পর মৃত্যুর কারণ জানা যাবে বলে উল্লেখ করে মোশাররফ হোসেন দাবি করেন, পুলিশ ওই দিন কাঁদানে গ্যাস ও রাবার বুলেট ছুড়েছিল। এতে কারও প্রাণহানি হওয়ার কথা নয়।
শিল্পসচিব আরও বলেন, ইন্ধনদাতাদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনার কাজ চলছে। ইন্ধনদাতাদের সম্পর্কে সংবাদকর্মীদের নিশ্চিত করতে তিনি একটি গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিবেদনের অংশবিশেষ উদ্ধৃত করেন। মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া বলেন, রংপুর চিনিকলের জন্য সরকার ১৯৫৪ সালের দিকে ১ হাজার ৮৪২ একর জমি অধিগ্রহণ করে। তখনই এসব জমির মালিকদের আইন অনুযায়ী ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয়েছে। ২০০৪ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত তৎকালীন সরকারের সিদ্ধান্তে চিনিকলটি যখন সম্পূর্ণ বন্ধ (লে-অফ) ছিল, তখনো কেউ সেখানে জমির দাবি নিয়ে আসেনি। হঠাৎ গত ১ জুলাই ‘ভূমি উদ্ধার কমিটি’ নামে একটি সংগঠনের ব্যানারে সাঁওতালরাসহ এলাকার ও এলাকার বাইরের কিছু লোক এসে চিনিকলের জমিতে অস্থায়ী ঘর নির্মাণ শুরু করে। তারপর থেকে এ ধরনের ঘরের সংখ্যা বাড়তে বাড়তে প্রায় ২৫০টিতে পৌঁছায়। বিষয়টি নিয়ে চিনিকলের কর্মকর্তারা ও স্থানীয় প্রশাসন তাদের সঙ্গে কথা বলে। পরে একটি সমঝোতা সভারও আয়োজন করা হয়। কিন্তু তারা চিনিকলের জমির দখল ছাড়তে রাজি হয়নি। বরং ১২ ও ১৬ জুলাই স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতেই তারা উচ্ছৃঙ্খল আচরণ করে।
সংবাদ সম্মেলনে সাঁওতালদের বাড়িঘরে আগুন দেওয়ার বিষয়ে শিল্পসচিব বলেন, ঘটনার পেছনের ইন্ধনদাতারা আগুন দিয়েছে বলে তাঁদের ধারণা। অবৈধ দখলদারদের দৌরাত্ম্যে ‘বিরক্ত’ লোকজনও এতে অংশ নিয়ে থাকতে পারে।
অবশ্য ওই ভূমির দলিল ও পুরোনো কাগজপত্র পর্যালোচনা করে অধ্যাপক আবুল বারকাত বলেন, জমি যে সাঁওতালদেরই তাতে কোনো সন্দেহ নেই। কাগজে দেখা যায়, ১৯৬২ সালের ৭ জুলাই একটা চুক্তির মাধ্যমে চার মৌজার ১ হাজার ৮৪২ দশমিক ৩০ একর জমি অধিগ্রহণ করা হয়। চুক্তিপত্রের ৫ ধারায় বলা আছে, চিনিকল এবং আখ চাষের জন্য এ জমি নেওয়া হলো। যদি কখনো এ জমিতে এ ছাড়া (আখ চাষ ছাড়া) অন্য কিছু হয়, তাহলে এটা মূল মালিকদের ফেরত দেওয়া হবে। কিন্তু তার আগেই ২০০৪ সালে চিনিকল লে-অফ ঘোষণার পরে স্থানীয় কিছু প্রভাবশালীকে নামে-বেনামে এ জমি লিজ দেওয়া হয়েছে।
অধিগ্রহণের সময় ক্ষতিপূরণ প্রসঙ্গে অধ্যাপক বারকাত বলেন, অধিগ্রহণের সময় তাদের ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয়েছিল এমন তথ্য তিনি এখনো কোনো কাগজে পাননি। কিন্তু সবচেয়ে বড় বিষয় হলো অধিগ্রহণের শর্তই ছিল আখ চাষ না হলে জমি ফেরত দেওয়া হবে।
একই তথ্য দিয়ে সাহেবগঞ্জ-বাগদাফার্ম ইক্ষু খামার জমি উদ্ধার সংহতি কমিটির সহসভাপতি ফিলিমন বাস্কে বলেন, ১৯৪৮ সালের অধিগ্রহণ আইন অনুসারে যে চুক্তি হয় তাতে বলা হয়েছে, জমিতে আখ ছাড়া অন্য ফসলের চাষ হলে প্রকৃত মালিকদের জমি ফেরত দিতে হবে। কিন্তু ১ হাজার ৮৪২ একর জমির মধ্যে মাত্র ১০০ একর জমিতে আখ চাষ করা হচ্ছে। বাকি জমিতে ধান, তামাকসহ বিভিন্ন শস্য চাষ হচ্ছে। তাই তাঁরা এখন জমি ফেরত চান।
এর আগে গত শনিবার গাইবান্ধায় সাঁওতাল-অধ্যুষিত দুটি গ্রামে হামলায় আওয়ামী লীগের স্থানীয় সাংসদ ও সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যানের ইন্ধন রয়েছে বলে অভিযোগ করেন সাঁওতাল নেতারা। তাঁরা বলেন, চিনিকলের সঙ্গে জমি নিয়ে বিরোধ মেটাতে সাংসদ আবুল কালাম আজাদ ও ইউপি চেয়ারম্যান শাকিল আহমেদের সহযোগিতায় তাঁরা চার বছর আগে আন্দোলন শুরু করেন। কিন্তু সাংসদ ও চেয়ারম্যান মুখ ফিরিয়ে নিয়ে সহিংস ঘটনায় ইন্ধন জুগিয়েছেন। সাংসদ ও চেয়ারম্যান অবশ্য এ অভিযোগ অস্বীকার করেন।
হাতকড়া খোলার নির্দেশ হাইকোর্টের: নিজস্ব প্রতিবেদক জানান, চিকিৎসাধীন তিন সাঁওতালের হাতকড়া খুলে দিতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। পুলিশের রংপুর রেঞ্জের ডিআইজি, ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার ও গাইবান্ধার পুলিশ সুপারের প্রতি এ নির্দেশ দেওয়া হয়। নির্দেশনা বাস্তবায়নের বিষয়ে ১৬ নভেম্বরের মধ্যে তিন কর্মকর্তাকে প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়েছে। বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি কৃষ্ণা দেবনাথের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ গতকাল এক রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি শেষে এ বিষয়ে রুল জারি করেন।
পুলিশ ও চিনিকলের শ্রমিক-কর্মচারীদের সঙ্গে সাঁওতালদের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ চরণ সরেন, বিমল কিছকু ও দ্বিজেন টুডু এখন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তাঁদের হাতকড়া পরা অবস্থায় চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে এমন একটি ছবিসহ ইংরেজি দৈনিক দ্য ডেইলি স্টার প্রকাশ করে। এই প্রতিবেদন যুক্ত করে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা চেয়ে গতকাল রিট আবেদনটি করেন আইনজীবী জ্যোতির্ময় বড়ুয়া। আদালতে রিটের পক্ষে তিনি নিজেই শুনানিতে অংশ নেন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মোতাহার হোসেন সাজু।
জ্যোতির্ময় বড়ুয়া প্রথম আলোকে বলেন, আহত তিনজনের মধ্যে দ্বিজেন টুডু ঢাকায় চক্ষুবিজ্ঞান ইনস্টিটিউটে এবং চরণ সরেন, বিমল কিছকু রংপুর মেডিকেল কলেজে চিকিৎসাধীন। তাঁরা গুলিতে আহত হয়েছেন। শারীরিকভাবে নিজেরা চলতে অক্ষম। তাঁদের পালানোর কোনো সম্ভাবনাও নেই। এভাবে হাতকড়া পরানো মানবাধিকারের লঙ্ঘন। এসব যুক্তিতে রিটটি করা হয়।
রুলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনজনকে হাতকড়া পরানো কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চাওয়া হয়েছে।
রংপুর থেকে নিজস্ব প্রতিবেদক জানান, রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিমল কিছকুর হাতে হাতকড়া ছিল। তাঁর বাঁ পায়ের তালু এবং ডান পায়ের হাঁটুর ওপরে ব্যান্ডেজ। তবে চরণ সরেনের হাতে হাতকড়া ছিল না। চরণের স্ত্রী পানি মুরমু বলেন, ‘সাংবাদিক ও অন্য লোকজন আসার আগে হাতকড়া খুলে দেওয়া হয়। চলে গেলে আবার হাতকড়া লাগানো হয়।’ বিমল কিছকুর স্ত্রী ডিজিলিয়াও একই অভিযোগ করেন।
এ প্রসঙ্গে গোবিন্দগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুব্রত সরকার বলেন, পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। হাইকোর্টের নির্দেশের পর হাতকড়া খুলে দেওয়া হয়েছে।
মানববন্ধন-সমাবেশ: গতকাল বিকেলে গোবিন্দগঞ্জ-দিনাজপুর সড়কের গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার কাটা এলাকায় মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখার দাবিতে সাপমারা ইউপির চেয়ারম্যান এ কর্মসূচির আয়োজন করেন। সমাবেশ প্রসঙ্গে সাহেবগঞ্জ-বাগদাফার্ম ইক্ষু খামার জমি উদ্ধার সংহতি কমিটির সহসভাপতি ফিলিমন বাস্কে বলেন, যারা সাঁওতালদের উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেছে, তারাই মানুষের কাছে ভালো সাজার জন্য এই সমাবেশ করেছে।

 
Share:

গবাদিপশু থেকে ঘরের টিন ব্যাপক লুটপাট, কেউ স্কুলে যাচ্ছে না: সাঁওতালপল্লিতে আতঙ্ক, পুরুষেরা বাড়িতে নেই

আশীষ-উর-রহমান ও শাহাবুল শাহীন, গাইবান্ধা থেকে | আপডেট: | প্রিন্ট সংস্করণ
[ গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে সাঁওতালদের উচ্ছেদের পর গির্জার সামনে সমবেত নারীরা। গতকাল তোলা ছবি l প্রথম আলো  ]    

অলিভিয়া হেমব্রমের তিন ছেলে। ছোটটি কোলে, বড় আর মেজ মায়ের দুপাশে দাঁড়িয়ে। ভীত-বিহ্বল মুখ। তাদের বাবা দ্বিজেন টুডুর চোখে গুলি লেগেছে। অলিভিয়া স্বামীর খবর খুব বেশি জানেন না। তিনি জানেন, ঢাকায় জাতীয় চক্ষুবিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে তাঁর চিকিৎসা চলছে। অবস্থা একটু ভালো।
দ্বিজেন ৬ নভেম্বর গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার সাপমারা ইউনিয়নের সাহেবগঞ্জ এলাকায় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে আহত হন। প্রথমে তাঁকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে ঢাকায় পাঠানো হয়।
গতকাল মঙ্গলবার সাঁওতালপল্লিতে ঘুরে দেখা গেল, এখানে তীব্র আতঙ্ক বিরাজ করছে। গ্রামে পুরুষের সংখ্যা অল্পই। গ্রেপ্তারের ভয়ে তাঁরা পালিয়ে আছেন। নারী আর বয়স্করা মূলত মাদারপুর গির্জার সামনে এসে জড়ো হয়েছেন। এখানে মাদারপুর, বড় জয়পুর, ছোট জয়পুর—এই তিনটি গ্রামে প্রায় সাড়ে বারো শ সাঁওতাল পরিবারের বাস। তাদের প্রায় অর্ধেক খ্রিষ্টান। পল্লির পূর্ব পাশে রংপুর চিনিকলের ১ হাজার ৮৪২ একরের সাহেবগঞ্জ আখের খামার। মাঝখানে শুধু মেটে রাস্তা। খামারের জমিগুলো ১৯৬২ সালে অধিগ্রহণ করা হয়। এর সিংহভাগ ছিল সাঁওতাল এবং অল্প কিছু আশপাশের মুসলিম ও হিন্দু পরিবারের। এখন সব জমিতে আর আখ চাষ হয় না। এই জমি ফেরত চেয়ে সাঁওতালরা ২০১২ সাল থেকে আন্দোলন করছে। বেশ কয়েকবার এখানে ঘরও তোলা হয়েছিল। সেসব ঘর মিল কর্তৃপক্ষ ভেঙে দেয়। চলতি বছরের গত ১ জুলাই সাঁওতালরা হরিণমারি, সাহেবগঞ্জ, মাদারপুর ও কুয়ামারা মৌজায় দুই শতাধিক একচালা ঘর তৈরি করে বসবাস শুরু করে। ৬ নভেম্বর সন্ধ্যায় চিনিকল কর্তৃপক্ষ উচ্ছেদ অভিযান চালায়। চিনিকল শ্রমিক-কর্মচারীদের সঙ্গে বিপুলসংখ্যক পুলিশ-র‍্যাব উচ্ছেদে অংশ নেয়। এতে সাঁওতাল সম্প্রদায়ের তিনজন মারা যান।
এ ব্যাপারে গোবিন্দগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুব্রত সরকার বলেন, পুলিশ তাদের হয়রানি করছে না বা ভয়ভীতি দেখাচ্ছে না; বরং তাদের নিরাপত্তার জন্য টহল দিচ্ছে।
গবাদি পশুপাখি ও টিনের চাল লুট: ৬ নভেম্বর রোববার সন্ধ্যায় আখের খামারের জমিতে তৈরি এক চালাঘর উচ্ছেদের সময় এবং পরদিন খুব ভোরে আবার মূল সাঁওতালপল্লিতে হামলা হয়। একদল লোক তাদের বাড়িতে ব্যাপক লুটপাট চালায় বলে অভিযোগ করল সাঁওতালরা। বিশেষ করে তাদের গরু, ছাগল, ভেড়া, শূকর ও হাঁস-মুরগি লুট হয়ে যায়। অনেক বাড়ি থেকে টিন খুলে নেওয়া হয়। ফুলমনি হেমব্রেমের লুট হয়েছে দুটি গাভি ও একটি এঁড়ে বাছুর। আনচেল মুর্মুর দুটি গরু লুট হয়েছে। এজিকেল মুর্মু, দিলীপ মুর্মু, জামিল হেমব্রেমসহ অনেকে অভিযোগ করলেন, তাঁদের চাঁদা তুলে কেনা চারটি পাওয়ার টিলার ও চারটি শ্যালো মেশিন লুট হয়েছে। সাহেবগঞ্জ বাগদা ফার্ম ইক্ষু খামার ভূমি উদ্ধার সংহতি কমিটির সহসভাপতি ফিলিমিন বাস্কে বলেন, ‘ঘটনার ১০ দিন পেরিয়ে গেলেও সরকার সাঁওতাল হত্যা, ঘরে অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনায় কোনো তদন্ত কমিটি করেনি। আমরা এই ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত চাই।’
গ্রেপ্তারের ভয়ে বাড়িছাড়া: সংঘর্ষের ঘটনার পর পুলিশ বাদী হয়ে ৪২ জনের নাম উল্লেখ করে এবং তিন থেকে চার শ অজ্ঞাতনামা ব্যক্তির নামে থানায় মামলা করে। এরপর পুলিশ প্রায়ই এসে গ্রামে টহল দিচ্ছে। গ্রেপ্তারের ভয়ে অধিকাংশ পুরুষ পালিয়ে আছেন। গতকাল মাদারপুর গির্জার সামনে উপস্থিত ব্যক্তিদের বেশির ভাগই ছিলেন নারী। কয়েকটি দাতা সংস্থা তাঁদের ত্রাণসামগ্রী পাঠিয়েছে। সেসব নিতেই এসেছিলেন। তাঁরা বললেন, সংঘর্ষে তাঁদের অনেক লোক আহত হয়েছেন। গ্রেপ্তারও করা হয়েছে অনেককে। অনেকে গ্রেপ্তার এড়াতে গোপনে চিকিৎসা করাচ্ছেন। এ জন্য সঠিক কত লোক আহত হয়েছেন, নিখোঁজ কত, লুটপাটে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণইবা কত, তা সঠিকভাবে নির্ণয় করা যাচ্ছে না।
শিশুরা স্কুলে যাচ্ছে না: ঢাকায় চিকিৎসাধীন দ্বিজেনের স্ত্রী অলিভিয়া বললেন, তাঁর বড় ছেলে ইলিয় টুডু চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ে। ওই ঘটনার পর থেকে স্কুলে যাওয়া বন্ধ। শুধু দ্বিজেনের ছেলে নয়, এই তিনটি সাঁওতাল গ্রামের শতাধিক শিশু-কিশোরের কেউই স্কুলে যাচ্ছে না।
গতকাল শিক্ষার্থীদের স্কুলে পাঠাতে অভিভাবকদের অনুরোধ করতে গির্জার সামনে এসেছিলেন বুজরুক বেড়া আরজি আদিবাসী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মামুনুর রশীদ। তিনি জানালেন, তাঁর স্কুলে আদিবাসী শিক্ষার্থী ৯০ জন। কেউ স্কুলে যাচ্ছে না। এ ছাড়া পাশেই সাহেবগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও কাঁচা কৃষ্ণপুর বহুমুখী উচ্চবিদ্যালয়েও সাঁওতাল শিক্ষার্থীরা যাচ্ছে না বলে জানা গেল। অভিভাবকেরা বললেন, তাঁরা এই পরিস্থিতিতে সন্তানদের বাড়ি থেকে বের হতে দিতে সাহস পাচ্ছেন না। এখনো রাস্তায় চলাচল করার সময় বিচ্ছিন্নভাবে সাঁওতালদের ওপর হামলা হচ্ছে। কারা হামলা করছে জানতে চাইলে তাঁরা জানান, একটি প্রভাবশালী মহল এত দিন চিনিকল থেকে জমি লিজ নিয়ে চাষাবাদ করত। তারা ও তাদের লোকেরাই সাঁওতালদের ওপর হামলা করছে। এদের নাম উল্লেখ করতে চাননি তাঁরা।
গতকালও সরকারি ত্রাণ নেননি: চার্চের সামনে লাইনে ছিলেন সুখী সরেন। গতকাল খ্রিষ্টান ও সনাতনধর্মী সাঁওতাল এবং হিন্দু-মুসলিম ক্ষতিগ্রস্ত সবাইকে বেসরকারি উদ্যোগে দেওয়া হলো একটি করে অ্যালুমিনিয়ামের পাতিল আর একটি করে গ্লাস, চামচ ও থালা। এর আগে আরও বেসরকারি উদ্যোগে দুই দফায় পরিবারপ্রতি ১০ কেজি করে চাল, ২ কেজি আলু, ১ কেজি মসুর ডাল ও ১ লিটার সয়াবিন, ১টি করে শাড়ি ও লুঙ্গি দেওয়া হয়েছিল। গতকালও তাঁরা সরকারি ত্রাণ নেননি। বৃদ্ধ সিমন কিসকুর ঘর পুড়েছে, বলদ লুট হয়েছে। তিনি ক্ষোভের সঙ্গে বললেন, ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে দিয়ে ‘মুষ্টির চাল’ দিতে এসেছেন!
 দুজন কারাগারে: রংপুর থেকে নিজস্ব প্রতিবেদক জানান, গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জের ঘটনায় আহত ও রংপুর মেডিকেলে চিকিৎসাধীন দুই সাঁওতালকে গতকাল গাইবান্ধা কারাগারে পাঠানো হয়েছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে, তাঁরা দুজন আপাতত সুস্থ হয়ে ওঠায় ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে। এই দুজন হলেন মাদারপুর গ্রামের বিমল কিচকু (৪০) ও চরণ সরেণ (৫০)।
ভূমিদস্যুরা সাঁওতালদের ব্যবহার করেছে: ঢাকায় নিজস্ব প্রতিবেদক জানান, শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেছেন, গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জের যে ভূমি নিয়ে সমস্যা চলছে, সেটি সাঁওতালদের জায়গা ছিল না। ভূমিদস্যুরা সাঁওতালদের ব্যবহার করেছে। তাদের উদ্দেশ্য ছিল সাঁওতালদের দিয়ে দখল করিয়ে পরে নিজেদের দখলে নেওয়া। গতকাল স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত আইনশৃঙ্খলা-সংক্রান্ত মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে হিন্দুদের ওপর হামলার ঘটনার পেছনে স্বার্থান্বেষী মহলের যোগসাজশ থাকতে পারে বলেও মনে করেন শিল্পমন্ত্রী। তিনি বলেন, সাম্প্রতিককালে বিভিন্ন জায়গায় মন্দির ভাঙা বা এ ধরনের ভাঙচুরের ঘটনাগুলো ঘটছে। স্বার্থান্বেষী মহলের পরিচয় জানতে চাইলে শিল্পমন্ত্রী বলেন, তদন্ত সাপেক্ষে তা বের করা হবে। এ পর্যন্ত ৮৪ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।
সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, স্থানীয় সরকারমন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, পুলিশের মহাপরিদর্শক এ কে এম শহীদুল হক প্রমুখ।

 
Share:
Copyright © The Santal Resources Page | Powered by Blogger Theme by Ronangelo